বৃষ্টি থামল সকালে, সন্ধ্যায়ও থইথই পানি
অসুস্থ বোনকে নিয়ে রাঙ্গুনিয়া থেকে গতকাল বুধবার দুপুরে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে আসেন গৃহিণী পাপড়ি আক্তার। তাঁরা যাবেন মা ও শিশু হাসপাতালে। আগ্রাবাদ থেকে হাসপাতালের উদ্দেশে রিকশা নিয়ে আধা কিলোমিটার পথ পাড়ি দেওয়ার পর দেখতে পান সড়ক পানিতে ডুবে আছে। হাসপাতালে পৌঁছার পর দেখেন ভবনের নিচতলা পানিতে থইথই করছে। তাঁরা যে চিকিৎসকের কাছে এসেছেন, তিনিও নেই। পরে দুই বোন হাঁটুপানি মাড়িয়ে হাসপাতাল থেকে চলে যান। গতকাল সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত হাসপাতালের নিচতলা ও সামনের সড়ক পানিতে ডুবে ছিল। এর আগে দুপুরে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, নিচতলার জরুরি বিভাগ, বহির্বিভাগ, টিকিট কাউন্টার, ক্যাশ কাউন্টার, পরিচালকের কক্ষ, দর্শনার্থীদের বসার কক্ষে হাঁটুসম পানি জমে আছে। এর মধ্যেই রোগীরা আসছেন। আবার হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছেন কেউ কেউ। এমনকি অসুস্থ অনেক রোগী নিয়ে রিকশা ও ভ্যান দর্শনার্থীদের কক্ষে ঢুকতে দেখা গেছে।